অন্য ভাষায় :
শুক্রবার, ০৭:৩০ অপরাহ্ন, ২১ জুন ২০২৪, ৭ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
মানব সেবায় নিয়োজিত অলাভজনক সেবা প্রদানকারী সংবাদ তথ্য প্রতিষ্ঠান।

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন ঃ দ্রুত পাল্টে যাচ্ছে নির্বাচনের হিসেব ও দৃশ্যপট

স্টাফ রিপোর্টার, গাজীপুর
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২০ মে, ২০২৩
  • ৪৯ বার পঠিত

** মঙ্গলবার (২৩ মে) রাত ১২টার পর হতে বন্ধ থাকবে নির্বাচনী প্রচারণার সকল কার্যক্রম
** শেষবারের মতো হিসেব কষে ভোটারদের পিছে ছুটছেন প্রার্থীরা

স্টাফ রিপোর্টার, গাজীপুরঃ গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের এবারের নির্বাচনের প্রচারণার সকল কার্যক্রম মঙ্গলবার (২৩ মে) রাত ১২টার পর হতে বন্ধ থাকবে। ইতোমধ্যে বেশ জমে উঠেছে এ নির্বাচন। ভোট গ্রহণের দিন যতোই ঘনিয়ে আসছে, ততোই পাল্টে যাচ্ছে নির্বাচনের হিসেব নিকেশ। দ্রুত পাল্টাচ্ছে নির্বাচনী ময়দানের দৃশ্যপট। সেইসঙ্গে বাড়ছে প্রার্থী ও কর্মী সমর্থকদের ব্যস্ততা, বাড়ছে নির্বাচনী আমেজ ও উত্তাপ। প্রার্থীরা একে অপরের বিরুদ্ধে আচরণবিধি ভঙ্গের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ তুলছেন।

নির্বাচন অনুষ্ঠাণের ভোট গ্রহণের ৩২ ঘন্টা আগে থেকে নির্বাচনী প্রচারণার সকল কার্যক্রম বন্ধ রাখার নির্দেণা রয়েছে নির্বাচন আচরণ বিধি অনুযায়ী। সে হিসেবে ২৩ মে (মঙ্গলবার) রাত ১২টার পর হতে নির্বাচনী প্রচারণার সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। তাই নির্বাচনী প্রচারের সময়সীমার শেষ প্রান্তে এসে প্রার্থী ও তাদের কর্মী-সমর্থকরা চুলচেরা বিশ্লেষণ ও হিসেব নিকেশ কষে শনিবার সরকারী ছুটির দিনেও ঝড় বৃষ্টি ও গরমকে উপেক্ষা করে কর্মী সমর্থকদের নিয়ে প্রার্থীরা ভোটারদের পিছু নিয়ে হন্যে হয়ে ছুটছেন। তারা প্রতি মুহুর্তকে কাজে লাগাতে ভোটারদের সঙ্গে সাক্ষাত করে ব্যাস্ত সময় কাটিয়েছেন এদিন। ভোটারদের খেঁাজে যাচ্ছেন বাড়ি, পাড়া, মহল্লা, হাট-বাজার, দোকান পাট, মার্কেট, মিল-কারখানা ও অফিস আদালতে। প্রত্যন্ত এলাকায় কর্দমাক্ত পথে পায়ে হেঁটে ভোটারদের খোঁজে গিয়ে তারা দিনরাত নির্বাচনী প্রচার চালাচ্ছেন অনেকে। তারা নানা কৌশলে ভোটারদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে ভোট ও সমর্থন আদায়ের জন্য গণসংযোগ করছেন। যেন কোন প্রতিবন্ধকতাই তাদেরকে থামাতে পারছেনা।

এদিকে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী এড. আজমত উল্লা খানকে বিজয়ী করতে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করছেন দলের সকল পর্যায়ের নেতা কর্মী ও সমর্থকরা। গণসংযোগে অংশ নিতে আসা দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে পেয়ে এসব নেতা-কর্মীরা পূনরুজ্জীবিত হয়ে উঠেছে। দলের মনোনয়ন ঘোষণা দেওয়ার পর থেকে তারা ঐক্যবদ্ধ হয়ে মেয়র পদে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আজমত উল্লা’র জন্য নির্বাচনী এলাকায় বিরামহীন গণসংযোগ করছেন। তারা মেয়র প্রার্থীর দীর্ঘ অভিজ্ঞতা ও দক্ষতা এবং বর্তমান সরকারের বিভিন্ন কর্মসূচী তুলে ধরে ভোটারদের বাড়ি বাড়ি, পাড়ায়, মহল্লায় গিয়ে ভোট চাচ্ছেন। তারা ভোটারদের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছেন। এতে নৌকার পালে হাওয়া লেগেছে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন পরিচালনা কমিটির এডভোকেট আনোয়ার সা’দত।

প্রার্থীদের গণসংযোগঃ

দুর্নীতিগ্রস্ত প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে
মানবের কল্যাণ করা যায় না
— আজমত উল্লা খান

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট আজমত উল্লা খান বলেছেন, ‘একটা প্রতিষ্ঠান যদি দুর্নীতিগ্রস্ত হয়, সেই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে কোনো মানবের কল্যাণ করা যায় না। তাই গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনকে সম্পূর্ণ দুর্নীতিমুক্ত একটি সিটি কর্পোরেশনে পরিণত করতে হবে। আমি সেজন্য আপনাদের দোয়া চাই, সহযোগিতা চাই।’
তিনি শনিবার মহানগরের ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের ইটাহাটা এলাকায় এক নির্বাচনী পথসভায় বক্তৃতাকালে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘আমি টঙ্গী পৌরসভায় একটানা ১৮ বছর দায়িত্ব পালন করেছিলাম। আমার দল দুই বারই রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় ছিলো না। কিন্তু ১৮ বছরে আমার বিরুদ্ধে ১৮ টাকার দুর্নীতির অভিযোগ আল্লাহর রহমতে কেউ আনতে পারে নাই। সুতরাং এইভাবেই সিটি কপোর্রেশনকে আমরা গড়ে তুলতে চাই।’
তিনি বলেন, ‘আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি, এই সিটি কর্পোরেশনের মালিক নির্বাচিত মেয়র-কাউন্সিলররা নন। তারা মাত্র পঁাচ বছরের জন্য কেয়ারটেকার দারোয়ান হিসেবে কাজ করবে। এই সিটি কর্পোরেশনের মালিক এই নগরের ৩৫ লক্ষ জনগণ, এই সিটি কর্পোরেশনের মালিক ১২ লক্ষ ভোটার। আল্লাহ যদি আপনাদের সহযোগিতায় আমাকে কামিয়াব করেন, সিটি কর্পোরেশনের দরজা সব সময়ের জন্য জনগণের জন্য উম্মুক্ত থাকবে। যাতে করে তারা তাদের সমস্যাগুলো নিয়ে সরাসরি মেয়রের সাথে আলাপ করতে পারেন।’
আজমত উল্লা খান আরো বলেন, এই এলাকায় আমরা যারা বসবাস করি, তাদের রাস্তা-ঘাট, ড্রেন-কালভার্ট-ব্রিজ উন্নয়নসহ সুপেয় পানির ব্যবস্থা করা, একটি পরিচ্ছন্ন নগরী গড়ে তুলা, মাদকমুক্ত, সন্ত্রাসমুক্ত একটি নগর হিসেবে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনকে গড়ে তুলা, আমাদের এলাকার সার্বিক উন্নয়নের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একনেকে পাস করে প্রথমেই সাত শত কোটি টাকা দিয়েছেন। আবার এক হাজার পাঁচ শত ঊনপঞ্চাশ কোটি টাকা দিয়েছন। তার পর আবার তিনি ২০ হাজার ৮শ ২৮ কোটি টাকা দিয়েছেন। তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের এই নগরীকে পরিচ্ছন্ন নগরী গড়ে তুলার জন্য, এই যে আজকে ময়লা আবর্জনার স্তুপ, এই ময়লা আবর্জনার স্তুপ সরিয়ে এটাকে সুন্দর পরিষ্কার করার জন্য প্রধানমন্ত্রী ৭শ ৮২ কোটি টাকা দিয়েছেন।’ তিনি বলেন, ‘কাজ করতে টাকার প্রয়োজন হয়, কাজ ছাড়া টাকার প্রয়োজন হয় না। কিন্তু কাজ থাকলে টাকা থাকতেও কাজ হয় না। এটা কি মেনে নেয়া যায় ? এতো টাকা দিলেন, এই রাস্তাটার অবস্থাটা আপনারাই দেখতেছেন।’ তিনি বলেন, ‘টাকা থাকতেও কাজ কেন হয় নাই ? অনেকে বলেন ‘ডাল মে কুচ কালা হ্যায়’ এই কালাটা কী আমরা দেখেছি। আমরা দেখেছি, বহিষ্কৃত মেয়রের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠিত যে পত্রপত্রিকা টেলিভিশনে অনেক দুর্নীতির প্রমাণচিত্র বের হয়েছে। এমনকি মহামান্য সুপ্রিমকোর্টের হাইকোট ডিভিশনে তার দুর্নীতি নিয়ে রিট পিটিশন হয়েছে। বিশ্ব ইজতেমার মাঠও তার দুর্নীতি থেকে রেহাই পায় নাই। দুর্নীতি দমন কমিশন তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির প্রমান পেয়ে তাকে শোকজ করেছে।’
নৌকা প্রতীকের প্রার্থী অ্যাডভোকেট আজমত উল্লা খান প্রখর রোদ উপেক্ষা কারে শনিবার দিনভর প্রচারাণায় ব্যস্ত ছিলেন। তিনি শনিবার সকাল ৯টা থেকে রাত পৌনে ৯টা পর্যন্ত নগরীর ১৩, ১৪, ১৫, ১৬, ১৭ ও ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের প্রায় ২৭টি নির্ধারিত গুরুত্বপূর্ণ পয়েণ্টে পথসভা ও গণসংযোগ করেন।

স্বতন্ত্র প্রার্থী জায়েদা খাতুনঃ টেবিল ঘড়ি প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে মেয়র পদে প্রতিদন্ধিতা করছেন সাবেক মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলমের মা জায়েদা খাতুন। শনিবারেও তিনি ছেলে সাবেক মেয়র জাহাঙ্গীরকে সঙ্গে নিয়ে নগরীর টঙ্গীর বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করেন। এসময় তিনি বিভিন্ন পথসভায় বক্তব্য রাখেন ও ভোটারদের কাছে টেবিল ঘড়ি প্রতীকে ভোট প্রার্থণা করেন। গণসংযোগকালে ৫৭ নং ওয়ার্ডে প্রতিপক্ষের কর্মীরা তার গাড়িকে বাঁধা দেয় এবং হামলা চালায় বলে জায়েদা খাতুনের প্রধান সমন্বয়ক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম জানান। পরে তারা সদও থানা এলাকায় গণসংযোগ করেন।

জাপা প্রার্থীঃ জাতীয় পার্টি মনোনীত মেয়র প্রার্থী এমএম নিয়াজ উদ্দিন (লাঙ্গল) শুক্রবার মহানগরীর বসুগঅ৭ও, টঙ্গীসহ বিভিন্ন এলাকায় কর্মী সমর্থকদের নিয়ে দিনভর গণসংযোগ করেন। এসময় তিনি একাধিক পথসভায় বক্তব্য রাখেন।

স্বতন্ত্র প্রার্থী সরকার শাহ নূর ইসলাম রনি \ এদিকে হাতি প্রতীক নিয়ে অপর স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী সরকার শাহ নূর ইসলাম রনি শনিবার সকাল থেকে কর্মী সমর্থকদের নিয়ে নগরীর সদর থানার ২৩ থেকে ৩২ নং ওয়ার্ড এবং কাশিমপুর থানার ১নং হতে ৬ নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করেন। এসময় তিনি একাধিক পথসভায় বক্তব্য রাখেন।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’র প্রার্থীঃ ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত মেয়র প্রার্থী গাজী আতাউর রহমান (হাত পাখা) কর্মী সমর্থকদের নিয়ে নগরীর সদর ও বাসন থানার বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করেছেন। এসময় তিনি একাধিক পথসভায় বক্তব্য রাখেন।

###

স্টাফ রিপোর্টার, গাজীপুর।
২০/০৫/২০২৩ ইং।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2021 SomoyerKonthodhoni
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com